A Blog about Hotel industries stories ,Hindi, Bengali , English , read in this yodi dong blog.

Sunday, June 30, 2019

Negative Thoughts

https://www.kakolib.com/2019/06/negative-thoughts.html
Negative Thoughts

এই লেখাটাও বাংলা  তে লিখবো বলে  ,পিছলে ৫মাস আগে পড়েছি এই নেগেটিভ চিন্তার ওপর ,তারপর ইউ টিউব এ ভিডিও দেখেছি ,শেষ করেছি বিখ্যাত তিন টি  নেগেটিভ থটস উপর লেখা বই শেষ করে। অবাক হয়ে গেছি কতকোটি  মানুষ এই নেগেটিভ চিন্তার কবলে পড়ে আছেন জেনে -,ডিপ্রেশন,ফ্রাস্ট্রেশন স্ট্রেস এর কবলে পড়ে  থাকেন কত মানুষ দিনের পর  দিন ,আপনার শরীর ,মন  ,স্বাস্থ  বরবাদ করে এই negative  thoughts !


বাড়ি থেকে বাইরে যাচ্ছেন ,চাবি দিয়ে গাড়ি তে উঠলেন মন বলে উঠলো--চাবি  ঠিক দিয়েছো তো?লাইট এর স্বীচ গুলো ঠিক মতন  বন্ধ হয়ে ছিল ?বৌ বাচ্চা এই সময় কিছু জিজ্ঞাসা করতেই ঘ্যাঁক করে উঠলেন -যত দায়িত্ব শুধু আমার ,না। গাড়ি ছুটে  চলছে ,সঙ্গে আপনার দুশ্চিন্তা ছুটছে তাল দিয়ে ,আপনার প্রিয়' নেগেটিভ চিন্তা 'বাইরে ঘুরতে যাচ্ছেন বলে ছাড়া যায় কি ?

বিজ্ঞান বলে প্রতিটা মানুষ দিনে ৫০,০০০ হাজার চিন্তা করে। যার সিংহ ভাগ হলো negative thoughts.,শুরু তে single key words ,পরে হয়ে যায় লং টেইল  key words,কিন্তু আপনি এখন কি ভাবছেন কিংবা একটু আগে কি ভাব ছিলেন বলুন তো ?দেখবেন মনে পড়বে না সবটা!মনের খেলা এই রকম। এক বিখ্যাত মানুষ লাও উট জু বলেছেন--আপনার চিন্তা কে লক্ষ্য করুন ,ও গুলো তো শব্দ। আপনার শব্দ গুলো লক্ষ্য করুন ওগুলো তো আপনার কর্ম ,আপনার কর্ম গুলো লক্ষ্য করুন ওগুলো আপনার অভ্যাস ,আপনার অভ্যাস গুলো  লক্ষ্য করুন ,ওগুলো আপনার চরিত্র , আর আপনার চরিত্রটাই  তো আপনার নিয়তি

আমাদের খাবার ভীষণ রকম নিম্ন মানের ,ঘুম আমাদের অনিয়মিত ,আর শারীরিক কসরত করিনা আমরা। কেউ বলেন  কি ফুটবল না খেলতাম আমি,মানে উনি পনেরো বৎসর অবধি খেলেছেন ,আর আজ ত্রিশ বৎসর খেলা থেকে দূরে আছেন ?সকালে হাঁটেন ,বিকালে  এসিডিটি বুকে নিয়ে অফিস থেকে ঘরে ফেরেন। নেগেটিভ থটস এনার  নিত্য সঙ্গী হয়ে যায় ,ইনি এনার নেগেটিভ থটস পরিবেশন করেন বন্ধুদের মাঝে,শরীর টা ভালো নেই মুখের বুলি হয়ে ওঠে। ভাইরাল হয়ে যায় বাক্য টি --শরীর টা  আজভালো নেই।

মার্কিন বিসনেস ম্যান বলেছেন -মস্তিষ্কে অক্সিজেন এর চলাচল বাড়ান ,শারীরিক কসরত করুন ,সব কিছু বদলে যেতে বাধ্য। সেটা করুন সকাল  আট টার আগে। মেডিটেশন ,যোগ ব্যায়াম ,বা শুধু হালকা করে লাফান ,দেখুন কেমন বদল আনে  জীবন।দয়া  করে হার্ট এর রোগীরা যেন লাফাবেন না
আপনার চিন্তা -আসলে আপনার কথা বা শব্দ। চিন্তা করছেন মানে আপনি ভিতরে ভিতরে কথা বলে চলেছেন ,এটা বন্ধ করা যায় খুব সহজে। যা মনে মনে  বলছেন সেটা একটু জোরে বলুন ,দেখুন থেমে গেছে   চিন্তা ,অবাক কান্ড তাই না।

অনেকেই বলেন এতো বছরের নেগেটিভ চিন্তা সহজে কি যায় ,সাইন্স বলে -নিশ্চয় যায়। ধরুন  এক লিটার নেগেটিভ চিন্তা মানে কালো রং ,একটা বড়ো  জায়গায় ঢাললেন ,এবার এর মধ্যে এক লিটার সাদা রং ঢালুন। কালো রং খানিকটা ফেড হলো ,তারপর ঢালতে থাকুন সাদা রং এক এক লিটার করে ,,দেখবেন একশো লিটার ঢালার পর ,সমস্ত কালো সাদা হয়ে গেছে !পসিটিভ থটস রোজ ঢালুন নিজের মনে দেখবেন একশো দিন পর ,নেগেটিভ থটস আর আপনাকে কাবু করতে পারছে না।


Negative Thoughts
 আপনি এক জন দায়িত্ত্ব বান স্বামী বা স্ত্রী ,কিংবা মা বা বন্ধু কারো ,কাছে এলেই সব রোগ সেরে যায় ,তাহলে আপনার মনের ছোঁয়ায় নেগেটিভ থটস পসিটিভ কেন হবে না ?ছেলে বেলায় ভয়ের স্বপ্ন দেখলে ,মা কিংবা বাবা কে জড়িয়ে ধরলে ভয় কেটো যেত না ?কারণ মা ,বাবার পসিটিভ পাওয়ার অনেক বেশি  ওই রাতে,আপনার থেকে।

আর একটু পরিসংখ্যান দিতে পারতুম এই নেগেটিভ থটস এর উপর ,কিন্তু এবার না ,পরেরবার কোনো এক সময় লিখবো। ভালো লাগলো কিনা,কাজে লাগলো কিনা জানান দয়া করে।














No comments:

Post a Comment